কাঠের প্যাঁচা

তুষ্টি ভট্টাচার্য



#২৬

ধুনী জ্বেলে বসে আছে চাঁদ…
এই মাঝরাতে যখন উৎসবের পৃথিবী ঘুমোয়
কোটর থেকে বেরিয়ে আসে প্যাঁচাটি
চাঁদ লক্ষ্য করে তার উড়ান দেখে সে
ঈর্ষায় কেঁপে ওঠে বুঝি তার কাঠের ডানাদুটি।
ঝিম মেরে পড়ে আছে সে
আচ্ছন্নের মতো আমারও হাবভাব
কাকজ্যোৎস্নায় আমাদের সচকিত করে ডেকে ওঠে
পিউ কাঁহা…
গোলাপি ও সবুজ রাঙা পথ
অন্ধকার থেকে জেগে ওঠে।
ভাঙা পিচকিরি আর অনাহূত কাঠপ্যাঁচা
চাঁদ লক্ষ্য করে ছুড়ে মারে
তাদেরই আর্তস্বর।



#২৭

কাঠপ্যাঁচাটিকে দেখি অপলক
সুদক্ষ হাতে, অবলীলায় মিশিয়ে দেয়
যাদু উপকরণ।
মিশ্রণের পরে শুরু হয় এক
দৈব রসায়ন।
তুমি কি সেই যৌগের নাম জান?
জান কি, কোন এক্তিয়ারে লিখিত আছে
তার পরিমাপ?
জড় বিকারের ভেতর বুজকুড়ি ওঠে
রসায়নাগার কটু ধোঁয়ায় আচ্ছন্নপ্রায়…
কেউ খেয়ালই করেনি তাকে-
সে তখন উন্মাদের ডানায় ভর করে
পাড়ি দিয়েছে সুমেরু অঞ্চলে।
বসন্তের প্রাদুর্ভাব নেই, এমন দেশেই সে যাবে।
আমার কাঠের দরজাটি
বসন্তবাতাসে অনর্থক কেঁপে ওঠে
ওপাশে অস্তিত্বহীন এক ছায়া
এপাশে অপেক্ষার ঘ্রাণ…


অলংকরণঃ অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়

ফেসবুক মন্তব্য