দুটি কবিতা

বর্ণালী মুখোপাধ্যায়

ভালোবাসার বৃক্ষ রাজি

তোমার বুকের কাছে শক্ত মাটি
আলগা করলাম যত্ন করে।
যেখানে ব্যথারা জমে জমে
পাথর এক বিষাদ প্রতিম!
বলেছিলে, এ সবই সঞ্চয়
পাপ আর ব্যথা।
খুরপি চালিয়ে
এই সকাল বেলা, ঝুরঝুরে করেছি
সব শোক। মুঠোতে ভরে যেই বলেছি
ফুসমন্তর --- হুসস---
দেখলে তো সে সবই
মূলত ধুলোবালি।

এইবার একটু ঝুঁকে দেখো,
কেমন থোকা থোকা ফুটেছে ভোরবেলা!
আনাড়ির মতো হাওয়া বইছে
আর পতঝর এলো বলে নিজেই ঝরে পড়ছে
ক্ষয় ধরা পাতারা।

তোমার ডালে একটিবার এসে বসলো
ভালোবাসার পাখিরা
বিভ্রমের রঙ্গোলি আঁকছে রোদ।

ও আলোকময়
স্পর্শে এসো তবে!



শোক ডায়েরির পাতা থেকে


শোক সেই উঠোনের ধারে
লুকোনো বকুল গাছ।

ডালে সম্বরা দিয়ে ঝাঁঝ ওঠে।
ধোঁয়া অনর্গল।
শোক এসে দাঁড়ালো তখন। জানলার ধারে।
সে দেখে বকুলের নিচে, স্টেশনের বোষ্টম আসে।
মাথুরের গান গায়।

কোথাও কেউ নেই।
নীলকান্ত মণির মতো দুপুর।
নিশ্চিহ্ন মার্জনা। কুবো ডাকে।

এ তার গোপন শোক।

ফেসবুক মন্তব্য