দুটি কবিতা

নিলয় নন্দী

বিনিময়


এভাবেই বিনিময়। শব্দ বা নৈঃশব্দ।

ঘুমোচ্ছে জনপদ...
কেউ বা নির্ঘুম বাধ্য কোন অবাধ্যতায়।

এ'সময়ে এলে, অন্যমনস্ক হই।
অ্যান্ড্রয়েড জীবনে ঝাঁপ দিয়ে পড়ে বকুলগন্ধ।
জানালা বা রাতের রাস্তা ফিতে দিয়ে মাপে দূরত্ব
মাপে জল, নাব্যতা শরীরি...

স্পর্শ না-ছোঁয়া থেকে যায়
আমি স্বপ্নের ভেতর ফড়িং ধরতে ছুটি
হাওয়ার আগে আগে হাওয়ার পিছুপিছু
আর এক্সপ্রেস হুইসল...

ছন্দ ভাঙে। ছন্দ গড়ে।
পড়ে থাকা স্টেশনে অনাবশ্যক গদ্যের ধুলো জমে।

জলীয় বাস্পের দল নেমে আসে শহরে মধ্যরাতে...


শ্রাবণ প্রিলিউড

ক্যাফেটেরিয়ার জানালা বেয়ে চুঁইয়ে পড়ছে জল
কফি ধোঁয়াশা। আরো ধোঁয়া ঈপ্সিতামুখ।
গভীর অসুখ...

দূরত্ব রেখে যায় ইচ্ছা ব্যারিকেড
চিবুকের একটু উপরে এসে থামে চান্দ্রেয় প্রতিবিম্ব।

তখনো কেউ বুঝিয়ে চলে যতিচিহ্নের ব্যবহার
ওয়েটার নামিয়ে রেখে যায় আলঙ্কারিক স্ন্যাকস
চোখে চোখে পড়া হয় পরাবাস্তব ধাঁধা
আর লুঠপাট যত দীর্ঘশ্বাস...

বাকিটা কল্পকথা
সুগার কিউব মিশে যাচ্ছে দ্রুত
বাইরে তখন ঝুমবৃষ্টি নীল ছাতা মল্লার স্বরলিপি।

এমন দিনে কারে বলা যায়?

ফেসবুক মন্তব্য