পূর্বাপর, সন্দীপ রায়

সিদ্ধার্থ মুখোপাধ্যায়

কালধ্বনি থেকে প্রকাশিত "পূর্বাপর", সন্দীপ রায়ের ১৭টি ছোটো গল্পের সঙ্কলন, দাম ১২৫ টাকা। সন্দীপ রায় মূলত সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ-যাপনের গল্প বলেন। তাঁর গল্প বলার ভাষাটিও মাটির কাছাকাছি। অসীম মমতায় মানুষের সীমাবদ্ধতার গল্প শোনান, “মানুষের কী ক্ষমতা-সুধাংশুদের মতো দশ বিশটা বাড়ি ছাড়িয়েও আরও উঁচুতে আলো পৌঁছে দেবে (পূর্বাপর)!” “বাতিল জীবন”ও মানবিক সংবেদনে উদ্ভাসিত হয়ে ওঠে। বস্তুত এই যাত্রা প্রথম গল্প “বদলনামা” থেকে শেষের নাম-গল্প “পূর্বাপর” পর্যন্ত অব্যাহত। প্রাত্যহিকতার টানাপোড়েনে মানুষ ভাঙছে আবার ভাঙা টুকরোগুলো সে নিজেই কুড়িয়ে নিচ্ছে, নিজেকে নতুন করে গড়ে নিচ্ছে। সে স্বীকার করে নিচ্ছে বেঁচে থাকতে হলে শ্রম, ঘাম, অপমান তার প্রাপ্য, তবু এইভাবে বেঁচে থাকা অনিবার্য (আকাশের মানচিত্র, অবনমন)।

সহজ সরল জীবনের কথা বলতে বলতে কোথাও কোথাও গল্প বলার ভঙ্গি সামান্য তির্য্যক, যাতে কথাগুলি মননের অভীষ্ট লক্ষ্যে পোঁছে যেতে পারে। অধিকাংশ গল্পই ভান-ভনিতাহীন, পাঠকের সঙ্গে সরাসরি সংযোগ স্থাপন করে। আবার খননেও সন্দীপ সমান উদগ্রীব, তিনি জানেন ব্যবহারিক ঘাত প্রতিঘাতের শিকড় বুকের অনেক গভীরে ছড়িয়ে যায়। তার সন্ধান না করলে গল্প শেষ হয় না। কোনও কোনও গল্পে রূপকের ব্যবহার চোখে পড়ার মত (সাপ)। ভাল লাগল "সফর", মাল্টি-লেয়ার্ড গল্প, যতটুকু বলা, তার থেকে না-বলা কথা বেশি।

আধুনিক গল্পে নির্মাণ প্রায়শই মূল হয়ে ওঠে। সন্দীপের নির্মাণ কখনওই গল্প-বিষয়কে ছাপিয়ে যায়নি, বরং তাকে বহতা হতে সাহায্য করেছে। প্রায়ই কানে আসে আজকাল আর ভালো ছোটো গল্প লেখা হচ্ছে না, ছাপা হচ্ছে না। এমনকি বাণিজ্যিক ছাপা পত্রিকাগুলিতেও নাকি পাঠক উৎসাহ হারাচ্ছেন। এমন বিমর্ষ সময়ে সন্দীপের গল্প-সংগ্রহটি আশা জাগাল। বইটি সুধী পাঠকদের কাছে সমাদৃত হোক এই কামনা করি।

ফেসবুক মন্তব্য