জোনাকি ও হেলম্

বলাকা দত্ত



জোনাকি

ক্রমশ ছেয়ে যাচ্ছে পশ্চিম দিক, থমকে হাওয়া
গোটা শরীরে খেলছে শিহরণ
এত অস্থির করছে কেন ওরা!
উঠুক, অন্তত একটা ঝড় উঠুক।
জানো, কোন বন্ধু ছিল না আমার-

ওই যে অজানা হিলহিলে লতা
ক্রমশ জড়িয়ে বাড়ছে আমায়
সবুজ থেকে সবুজ... আরো, আরো একটু সবুজ
ঢেকে যাচ্ছি, আমি মিশে যাচ্ছি দেখো
আমার বন্ধু ছিল না কোন-

দেখতে পাচ্ছো ওই ঢেউটা- নির্বিকার ফিরে যাচ্ছে
পাতা ভিজিয়ে, ছিনিয়ে নিলো পায়ের তলার বালি
কেন যে এমন করে- ওই সর্বনাশা ঢেউ!
আধো আলোয় ভোরের শিরশিরে নোনা হাওয়া
আমার কাঁধ ছোঁয়া চুল উড়ে যেতে চাইছে
জানো, আমার বন্ধু ছিল না কোন-

রাত্রি সেদিন দুটো
তখনও দাঁড়িয়ে আছি ছাদে
আমার দুপাশ দিয়ে কালো জলের স্রোত
গভীরে মিশতে চলেছে রাত
আমার বাসতে ইচ্ছে করছে ভালো
জানো, বন্ধু ছিল না কোন-
আমার মুঠোতে জোনাকি ছিল।


হেলম্

তোমার হাতে হেলম্
আমি আলতো করে ছুঁয়ে তোমার কাঁধ
জাহাজ তখন গভীর সমুদ্রে
জলের ছাঁটে আদুরে আমার চোখ
পেরিয়ে যাচ্ছো দোতলা সমান ঢেউ
আমার চোখের দিকে চেয়ে, তোমার হাতে হেলম ।
ঢেউয়ের মাথা ভেসে যাচ্ছে আলোয়
জলের গভীর থেকে উঠে আসছে স্বর
তোমার শরীরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আমার সবটুকু বিশ্বাস
জাহাজ তখন গহীন জলের ভিতর
আমার শরীর থেকে ছিন্ন করা হৃদয়
তোমার হাতে তুলে দিলাম, দারুন নিরাপদে
আমি ডুবে যাচ্ছি লালে...

জলের ওপর ঠিকরে পড়ছে আলো
আমার ধাঁধিয়ে গেছে চোখ
কোথায় আমার হৃদয়? তোমার হাতে হেলম্
সেদিন আলতো করে ছুঁয়ে ছিলাম তোমায়
আমি জলের পাশে হৃদয়বিহীন একা
পেরিয়ে যাচ্ছো দোতলা সমান ঢেউ
তোমার হাতে হেলম্।

ফেসবুক মন্তব্য