চেনা-অচেনার সনেট

ঋজুরেখ চক্রবর্তী



সঙ্গোপন সাঙ্গ হলে নিশান্তের হৃদয়বাথানে
অচেনা আলোয় ক্রমে জাগে রুগ্ন প্রবীণ শিকড়ে
সমূহ সম্পন্ন ক্ষত। ব্যক্ত স্মৃতিমেদুরতা জানে
এই তার বিধিলিপি ইন্দ্রিয়ের ক্ষুব্ধ পরিসরে।

অন্ধ শীত চলে গেলে তোমাকে একান্তে দেখি ত্রাসে।
জলচল বেদনাগুলিও কত শান্ত অমলিন
নীলিমায় ভাঙে-গড়ে! উন্মন হাওয়ার অভিলাষে
থাকে না বাচিক মুক্তি প্রণীত অক্ষরে কোনওদিন।

তারপর পথরেখা চেনা বাসস্টপে এসে থামে।
চেনা শহরের যত চেনা ধ্বনি অচেনা নিখিলে
নিরুপায় চাহনির মিশ্র তমিস্রার গূঢ় কামে
নতুন স্মারক খোঁজে ইন্ধনের মিলে ও অমিলে।

চেনা বাসস্টপে এসে পথরেখা অলীক হারায়।
প্রবীণ শিকড় থেকে মাটি ঝরে, মাটি ঝ'রে যায়।

ফেসবুক মন্তব্য