তিনটি কবিতা

তৈমুর খান



সাফল্য

চারপাশ থেকে বিস্ময় ছুটে আসছে
প্রেমে পড়ার অভিনয় করে
মাত্ করে দিচ্ছি শহর

সবাই রস ঢেলে দিচ্ছে আমাকে
হাবুডুবু করতলে রসিক নাগর হয়ে
করে যাচ্ছি টইটম্বুর দিনপাত

খুব দামি জিনিসও সস্তায় পেয়ে যাচ্ছি
ঘরদোর কলসি কলসি ভরে নিচ্ছি বিলাস
পলিথিন প্যাকেটেও পাচার করছি সম্মান

সাফল্য দেখতে তুমিও আসবে নাকি?
তাহলে নির্মোক খুলে বসব নিরালায়
শব্দের পৌরুষে তোমাকেও করে নেব জয়


কাজলদিঘি

এখানেই আছি যেমন থাকা যায়
কাজলদিঘির পাড়ে অতিথি আমি
একান্ত কুঁড়ে ঘরে
জলে নামলে জোছনার রাধা
আমি তার ছায়া কুড়িয়ে পাই

খুব যদি ভুল হয়, শূন্যতার পরিধি জুড়ে
নিঃসঙ্গ চতুর ঘোড়া আসে
আমি তার ভ্রূর ধনুকে বাক্য বসাই
বাক্যে কোমল চাঁদ, শব্দে বিনয়
আমি তাকে ঢেকে রাখি অলীক মায়ায়

পড়শি বিকেল থেকে চেয়ে আনি খই
কী সুন্দর রাঙা তার ভেতরের ঘুম
অথবা ঘুমের ডাঙা চর্চিত সন্ধ্যায়
শ্রীরাধা নূপুর খুলে তরঙ্গ পার হয়
যত দেখি কাজলদিঘি নাচে চোখের তারায়


এ বাড়ি পৃথিবীর বাড়ি

একবার কি আসবে না?
এ বাড়ি আমার বাড়ি নয়
এ বাড়ি পৃথিবীর বাড়ি
এ বাড়িতে ঈশ্বর থাকেন
ঈশ্বর বড়ো নির্জন

তোমাকেই দেহ খুলে দেবো
সমস্ত পরাগগুলি নিয়ে যাবে তুমি
আগামীর পৃথিবীতে পরাগে পরাগে
ফিরে আসবে নতুন সন্তান

আসতে পারো,
আমি ও ঈশ্বর এক বাড়িতেই থাকি
পৃথিবী কোনওদিন আমাদের উদ্বাস্তু ভাবে না

ফেসবুক মন্তব্য