মারমেড

তুষ্টি ভট্টাচার্য


৯)
মাছ ভাজার তেল ছিটকে পড়ছে চামড়ায়
ফোস্কার ভেতরে জল দেখে নিচ্ছে নারী
আর সেই মেয়ে ফিসফ্রাইয়ে কামড় বসিয়ে দে দৌড়!

তুমি তো মাছ নও, কেটেকুটে চাপিয়ে দেওয়া যাবে কড়ায়
তুমি তো নও কোন নারী, বালিকাও নও তুমি
ভাজা হতে দেখে তবুও ল্যাজার কাঁটা বিঁধে যাওয়া গলায়
কথা বলতে ভুলে যাচ্ছ তুমি।
ভাষার কাছে ঋণ রেখে কোথায় যেতে পার তুমি?
কোন ঘুমের দেশে আছে স্বরের বর্ণ?

১০)
জলের নিচে চাঁদের ছায়া নেমে এলে তুমি বোঝ, রাত এসেছে
বালিকার জোনাকি খেলা আর নারীর জ্যোৎস্না স্নান দেখে
তোমারও হঠাৎ চাঁদ হতে ইচ্ছে হয়
ইচ্ছে হয় এই গভীর থেকে উঠে এসে হাওয়ায় ভেসে যেতে
যেভাবে ধূলিকণা মিশে থাকে বাতাসে
রাত বাড়ে
আর জলের তলায় তোমার গভীর ঘুম নিঃশব্দ হয়।
কোথাও যেন এক নদী ডেকে ওঠে তোমার নাম ধরে!

১১)
জেগে উঠে তুমি দেখ, জল সেই একই আছে জীবনের মত
তুমিও বদলাও নি
ওরাও আছে ওদেরই মতন
এ পৃথিবীর প্রদক্ষিণ শেষ হলে বদলাতে পারে সবটুকু
দিন আর দিন, আলোয় আলোময় ভুবন বা
আঁধারের গভীরে ঝুঁকে পড়া তীব্র অন্ধকার –
এ পৃথিবী তোমারই মতন উভচর
দিন-রাত, জল-স্থলে দুবেলার হাবুডুবু নিয়ে
এখনও ঘুরছে, যেভাবে ঘুরে মর তুমি
যেভাবে পালিয়ে যেতে চাও এ জীবন থেকে।
পাখির অলীক ছেড়ে তোমাদের ঘরে ফেরা হল না এবার।

ফেসবুক মন্তব্য